সোমবার, অক্টোবর ২৬, ২০২০

মধ্যরাতের ন্যায়বিচার

অন্যান্য শিশুরাও এর প্রাপ্য

পাঠক প্রিয়

শিক্ষকদের বেতন বন্ধ, সংসার চালাতে হিমশিম

দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার মুকুন্দপুর মডেল কিন্ডারগার্টেন স্কুলে শিক্ষকতা করে সংসার চালাচ্ছিলেন জাহেদুল ইসলাম। স্বল্প আয়ে সন্তানদের নিয়ে সংসার চালাতে...

পরীক্ষা বিষয়ে কাল শিক্ষামন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন

মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষার বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি সংবাদ সম্মেলনে আসছেন আগামীকাল বুধবার। এদিন বেলা ১২টায় শিক্ষামন্ত্রী ভার্চ্যুয়াল সংবাদ...

ভারতের ভিসা পাওয়া নিয়ে উদ্বিগ্ন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড

ভারত-পাকিস্তান দুই দেশের রাজনৈতিক সম্পর্ক যে পর্যায়ে এখন রয়েছে তাতে ২০২১ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণের জন্য ভারতের ভিসা পাওয়া...

ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলনে অংশ নেয়া নেতা  নিজেই ধর্ষক

দেশে ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলনে ঢাকার শাহবাগে আন্দোলনকারী তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী একটি বাম ছাত্র সংগঠনের নেতা সাজ্জাদ গাজীকে আগৈলঝাড়ায় কলেজ...

অনির্দিষ্টকালের জন্য পণ্যবাহী নৌযান ধর্মঘট

সারা দেশের নৌপথে চাঁদাবাজি বন্ধ, নৌ-শ্রমিকদের খাদ্য ভাতা প্রদানসহ ১১ দফা দাবিতে গতকাল সোমবার (১৯ অক্টোবর) মধ্যরাত থেকে অনির্দিষ্টকালের...
দু’জন অনাথের অধিকার ধরে রাখতে মধ্যরাতে দেওয়া মৌখিক সুমোটো সহ বাংলাদেশের বিচার বিভাগীয় কার্যকারিতার ইতিহাসে একটি নতুন মাত্রা যুক্ত হয়েছে, লিখেছেন ফররুখ খসরু।
এতিম ছেলেরা, নবম প্রয়াত অ্যাটর্নি জেনারেল কে এস নবির নাতি, অবশেষে তাদের পিতার বাড়িতে ফিরে আসতে পেরেছেন বিচারপতি আবু তাহের মোঃ সাইফুর রহমান এবং বিচারপতি মোঃ জাকির হোসেনের হাইকোর্ট বেঞ্চ টেলিফোনে মৌখিকভাবে একটি অনন্য সু-মোটো রুল জারি করার পরে এবং দিকনির্দেশনা ঢাকার ধানমন্ডির পুলিশকে তাদের প্রয়াত বাবার বাড়ীতে বাচ্চাদের প্রবেশের বিষয়টি নিশ্চিত করতে এবং গত শনিবার তাদের জন্য পুলিশ সুরক্ষার ব্যবস্থা করতে বলেছে। একটি বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেলে বিষয়টি নিয়ে সরাসরি আলোচনার পরে বেঞ্চ একটি সুমুটো (স্বেচ্ছাসেবক) পদক্ষেপের নির্দেশনা নিয়ে আসে। প্রয়াত অ্যাটর্নি জেনারেলের নাতি-নাতনীকে তাদের পিতৃ মামার দ্বারা ধানমন্ডির পৈতৃক বাড়িতে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। ছেলেরা তাদের লর্ডশিপদের নির্দেশ অনুসারে পুলিশ তাদের তালাকপ্রাপ্ত মায়ের বাসভবন থেকে ফিরে এসে তাদের পিতৃপুরুষের বাড়িতে বসতি স্থাপন করেছিল। মধ্যরাতে আদালত বাংলাদেশে নতুন নয়। এছাড়াও মধ্যরাতে আদালত ৫ ম সংশোধনীর রায় স্থগিত করতে বসেন। স্থানীয় ভাষায় প্রকাশিত একটি পত্রিকার সাথে জড়িত ব্যক্তির জামিনের ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটেছিল। রানা প্লাজা দুর্ঘটনার উদ্ধার অভিযানের সময় অক্সিজেন সরবরাহ ব্যহত হলে আদালত মধ্যরাতে হস্তক্ষেপ করে। ঠিক মধ্যরাত না হলেও, সন্ধ্যা। টার দিকে সন্ধ্যায় আদালত অন্য একটি ঘটনায় যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি স্থগিত করেছিল। সুতরাং, মধ্যরাতে নয়, বরং শিশুদের অধিকার রক্ষার জন্য যে ন্যায়বিচার হয়েছে তা হল আলোচনার বিষয়। আমরা সেখানে বিচারপতি মোঃ andমান আলী এবং বিচারপতি শেখ হাসান আরিফের ঐতিহাসিক রায়কে স্মরণ করতে পারি যিনি একাডেমিক প্রাঙ্গনে শারীরিক শাস্তি নিষিদ্ধ করার নির্দেশ দিয়েছেন। আদালতের এই দুটি আদেশ, গভীর অর্থে আবার আমাদের মনে করিয়ে দেয় যে শিশুদের এবং তাদের অধিকারগুলি সামাজিক অবস্থান, সময়, স্থান বা বর্ণ নির্বিশেষে সুরক্ষিত করতে হবে। মধ্যরাতের বিচার যা প্রাক্তন অ্যাটর্নি জেনারেল কে এস নবির দুই এতিম নাতিকে রক্ষার জন্য প্রদান করা হয়েছিল, এটি ব্যতিক্রম হতে পারে না, বরং বাংলাদেশের প্রতিটি শিশুর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য মামলা হতে পারে। আদালত যথাযথভাবে সম্মানের দাবিদার। একইভাবে, প্রতিটি শিশু তাদের নিজের বাড়িতে রাতে শান্তিতে ঘুমানোর দাবি রাখে।
১৯৯০ সালে জাতিসংঘের শিশু অধিকার বিষয়ক কনভেনশন (ইউএনসিআরসিসি) অনুসারে বর্তমান সরকার শিশুদের অধিকার আদায় করতে অনেক প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সন্তানের অধিকার রক্ষায় সরকার ইউএনসিআরসি’র নীতি ও বিধান কার্যকর ও প্রয়োগ করার চেষ্টা করেছে। একটি লক্ষণীয় পরিণতি হ’ল নতুন শিশু আইন, ২০১৩ কার্যকর করা যার মধ্যে ইউএনসিআরসিসি-র কিছু বিধানের প্রতিফলন ঘটেছে। শিশু আইন ২০১৩ এর লক্ষ্য ছিল শিশু কল্যাণ বোর্ড গঠন, থানায় শিশু বিষয়ক ডেস্ক স্থাপন, এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়োগ, শিশু আদালত, পারিবারিক প্রাতিষ্ঠানিক পরিচর্যা এবং আরও কয়েকজন। তবে এই শিশু আইন ২০১৩ এর যে কোনও একটি বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন সরকারী মন্ত্রকের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব একটি বড় বাধা। বর্তমানে, বাংলাদেশে শিশুদের অধিকার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করার জন্য পৃথক শিশু অধিদপ্তর নেই। তবে, বর্তমান সরকার বাংলাদেশ কর্তৃক প্রচুর প্রচেষ্টা সত্ত্বেও এখনও অবধি বিপুল সংখ্যক শিশু তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত রয়েছে। পথশিশুরা হ’ল বাংলাদেশের এক বিশাল সংখ্যক বঞ্চিত শিশু যারা দুর্ভাগ্যজনক অবস্থার দিকে ভয়ঙ্করভাবে রাস্তায় ফেলে রাখা হয়েছে।
দেশে বর্তমানে রাস্তার শিশুদের সংখ্যা সম্পর্কে কোনও আনুষ্ঠানিক পরিসংখ্যান নেই। তদাতিরিক্ত, বছরের পর বছর বৃদ্ধি পাওয়ায় তাদের সংখ্যা গণনা প্রায় অসম্ভব। তবুও, অনুমান করা হয় যে বাংলাদেশে 600০০,০০০ এরও বেশি পথশিশু বসবাস করছেন, তাদের মধ্যে ৭৫% রাজধানী ঢাকায় বসবাস করেন। ২০১৯ সালের মানব উন্নয়ন সূচকে ১৩৫ তম স্থানে রয়েছে এবং যেখানে প্রায় ৫০% জনগোষ্ঠী দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করছে, বিশ্বের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ রাস্তায় রাস্তার শিশুরা সামাজিক শ্রেণিবিন্যাসের নিখুঁত সর্বনিম্ন স্তরের প্রতিনিধিত্ব করে। ১৯৭১ সালে স্বাধীন হওয়ার পর থেকে এ দেশে জনসংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হয়ে গেছে এবং পথশিশুদের সংখ্যাও এই সময়ের মধ্যে বেড়েছে প্রায় আনুমানিক ৬ মিলিয়ন। দেশের ক্রমাগত সরকারগুলি দ্বারা এই অপ্রত্যাশিত শিশুদের ঘরে ফিরিয়ে আনার জন্য উল্লেখযোগ্য কোনও উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। তবে পথশিশুদের ক্রমবর্ধমান সংখ্যার পিছনের কারণগুলি সনাক্ত করা খুব কঠিন নয়, তবে সঠিক তথ্যের জন্য অধ্যয়ন করা ভাল হবে be নিঃসন্দেহে মূল কারণ হ’ল চরম দারিদ্রতা যা হাজার হাজার শিশুকে গৃহহীন করে তোলে। তবে এখনও ‘রাস্তার শিশুদের’ এর বৃহত্তর কারণ হ’ল সরকারী অবহেলা, কর্মহীনতা এবং দুর্নীতি। রাস্তার শিশুদের কোনও নির্দিষ্ট থাকার বা ঘুমানোর জায়গা নেই। তাদের যথাযথ পরিচর্যা না করায় তাদের মধ্যে অনেকে মারা যায়। তারা স্বাস্থ্যকর খাবার কিনতে অক্ষম। তারা বেশিরভাগ সময় অপ্রয়োজনীয় খাবার খান, কখনও কখনও অনাহারে খাবারের সন্ধান করেন। এখন, আমাদের বিবেকদের প্রত্যাশা যে এই ধানমন্ডির বাচ্চাদের জন্য আদালত জারি করা বিধি দিয়ে বাংলাদেশের লক্ষ লক্ষ রাস্তার অর্কিচেনের জীবনধারণ নিশ্চিত করা হবে। লর্ডশিপ হাইকোর্ট স্পষ্টতই এটি করবে, আমরা অনুরোধ করছি।
(ফররুখ খসরু, পিএইচডি গবেষক, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়। ইমেইল: khosrubd@gmail.com)

সর্বশেষ সংবাদ

ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলনে অংশ নেয়া নেতা  নিজেই ধর্ষক

দেশে ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলনে ঢাকার শাহবাগে আন্দোলনকারী তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী একটি বাম ছাত্র সংগঠনের নেতা সাজ্জাদ গাজীকে আগৈলঝাড়ায় কলেজ...

ভারতের ভিসা পাওয়া নিয়ে উদ্বিগ্ন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড

ভারত-পাকিস্তান দুই দেশের রাজনৈতিক সম্পর্ক যে পর্যায়ে এখন রয়েছে তাতে ২০২১ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণের জন্য ভারতের ভিসা পাওয়া নিয়ে এখন থেকে উদ্বিগ্ন পাকিস্তান...

শিক্ষকদের বেতন বন্ধ, সংসার চালাতে হিমশিম

দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার মুকুন্দপুর মডেল কিন্ডারগার্টেন স্কুলে শিক্ষকতা করে সংসার চালাচ্ছিলেন জাহেদুল ইসলাম। স্বল্প আয়ে সন্তানদের নিয়ে সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছিলেন তিনি। স্কুলের বেতনের...

যমুনা ব্যাংক এর ডায়ালাইসিস সেন্টারের শুভ উদ্বোধন

কুমিল্লার লাকসাম বাজারে যমুনা ব্যাংক ফাউন্ডেশন ডায়ালাইসিস সেন্টার, লাকসাম ইউনিট’র শুভ উদ্বোধন করা হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপ¯ি’ত থেকে ডায়ালাইসিস সেন্টারের শুভ...

অনির্দিষ্টকালের জন্য পণ্যবাহী নৌযান ধর্মঘট

সারা দেশের নৌপথে চাঁদাবাজি বন্ধ, নৌ-শ্রমিকদের খাদ্য ভাতা প্রদানসহ ১১ দফা দাবিতে গতকাল সোমবার (১৯ অক্টোবর) মধ্যরাত থেকে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট পালন করছেন পণ্যবাহী নৌযান...

জনপ্রিয় সংবাদ

সিভি এবং চাকুরী আবেদনের কিছু প্রয়োজনীয় টিপস

মানবসম্পদ বিভাগে কাজ করার বদৌলতে প্রতিনিয়ত নিত্য নতুন অভিজ্ঞতার সম্মুখে পরতে হয়। যার অধিকাংশই আসে সিভিকে কেন্দ্র করে। আমি সিরিজ আকারে সিভি এবং ক্যারিয়ার...

২৩ কোটি বছরের পুরনো হিরকখণ্ড উদ্ধার!

দেখতে কি সুন্দর হিরকখণ্ডটি । শুক্রবার রাশিয়ার অ্যানাবার নদীর ধারে আলরোসার এবেলিয়াখ খনি থেকে উদ্ধার হয় এই হিরক খণ্ডটি। এখনও স্থির হয়নি হিরকখণ্ডটি পালিশ...

মিথ্যা সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে তুরাগ থানা ছাত্রলীগ

তুরাগ থানা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক মোঃ আরিফ হাসান জানায়, গত ১১-০৮-২০২০ তারিখে ’আমার প্রাণের বাংলাদেশ’ নামক পত্রিকার অনলাইন সংস্করণে ‘রাজধানীর উত্তরা যুবলীগ নেতা নাজমুল হাসান...

পুতিনের মেয়েকে দেয়া হলো প্রথম করোনা ভ্যাকসিন

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লামিদির পুতিনের মেয়ে ক্যাটরিনাকে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে। এর আগে রাশিয়া বিশ্বের প্রথম করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের অনুমোদন ঘোষণা দিয়েছিল। ক্যাটরিনা ভালো আছে। খবর বিজনেস...